নরসিংদীর ঘোড়াশালে ডাকাত আতঙ্ক: রাত জেগে রাস্তায় রাস্তায় গ্রামবাসীর পাহারা!




পলাশ প্রতিনিধি, | প্রকাশিত: 06:41 PM, March 14, 2018
IMG

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে ডাকাতির ঘটনা। রাত ঘনিয়ে এলে পৌরবাসীর চোখেমুখে নেমে আসে ডাকাত আতঙ্ক। আর ডাকাতদের হাত থেকে নিজেদের জানমাল রক্ষা করতে রাত জেগে পাহারার ব্যবস্থা করেছে পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা। সরেজমিনে ঘোড়াশাল পৌর এলাকার পাইকসা ও দক্ষিণ পলাশ নামক গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, এলাকার যুবক বৃদ্ধরা লাঠি ও লোহার রড নিয়ে গ্রামের রাস্তায় রাস্তায় অবস্থান নিয়ে পাহারা দিচ্ছেন। কথা হয় দক্ষিণ পলাশ গ্রামের নিজামউদ্দিন নামে এক ব্যক্তির সাথে। তিনি জানান, গত কয়েকদিন ধরে ঘোড়াশাল পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামে ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। এতে গ্রামবাসীকে অনেক আতঙ্কের মধ্যে রাত পার করতে হচ্ছে। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ডাকাতি নিয়ন্ত্রণে তেমন কোনো ভূমিকা পালন করছেন না, তাই তারা নিজেরাই রাতের বেলা গ্রামে গ্রামে পাহারার ব্যবস্থা করেছেন। তিনি আরো বলেন, আমরা  দুই গ্রামের ৪৫ জন যুবককে নিয়ে রাতের বেলা পাহারার ব্যবস্থা করেছি। ১৫ জন করে তিনটি দল দুই গ্রামে রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত পাহারা দিচ্ছে। পাইকসা গ্রামের মনির হোসেন জানান, প্রতিটি ঘর থেকে একজন করে এক এক রাতে পাহারায় অংশ নিতে বলা হয়েছে। কোনো এলাকায় ডাকাত ঢোকার খবর শোনার সাথে সাথে এলাকার মসজিদের মাইকে প্রচার করে দেয়া হয়, যেন এলাকার মানুষ একত্রিত হয়ে ডাকাতির ঘটনা রুখতে পারে। একই গ্রামের এরশাদ মিয়া জানান, কয়েকদিন ধরে এলাকায় প্রতি রাতেই ডাকাত হানা দিচ্ছে। অথচ পুলিশ কোনো জোরালো ভূমিকা নিচ্ছে না। তারা শুধু একবার গাড়ি নিয়ে টহল দিয়ে চলে যায়। পরে আর তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না। পাইকসা গ্রাম ছাড়াও পৌর এলাকার দলাদিয়া, গড়পাড়া, বালচুরপাড়া, ভাগ্যেরপাড়া, কুটিরপাড়াসহ কয়েকটি গ্রামে ডাকাত আতঙ্কে গ্রামবাসী নিজস্ব উদ্যোগে রাত জেগে পাহারার ব্যবস্থা করেছেন। : এ ব্যাপারে ঘোড়াশাল পৌর মেয়র শরীফুল হক শরীফ জানান, কয়েকদিন ধরে পৌর এলাকার গ্রামগুলোতে ডাকাতির আতঙ্ক বিরাজ করছে। আমরা প্রতিটি ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নিয়ে কয়েক দফা সভা করে ডাকাতপ্রবণ এলাকাগুলোতে গ্রামবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করার ব্যবস্থা করছি। এছাড়া পুলিশ প্রশাসনকেও নিরাপত্তার ব্যবস্থার জন্য জানানো হয়েছে। : পলাশ থানার ওসি মো. সাইদুর রহমান জানান, থানায় জনবল কম থাকায় আমরা জোরালো কোনো ভূমিকা পালন করতে পারছি না। পুলিশের পক্ষ থেকে ডাকাতপ্রবণ এলাকাগুলোতে বিশেষ টহলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া গ্রামবাসীর কাছে থানার ফোন নম্বর দিয়ে দেয়া হয়েছে। ডাকাত ঢোকার সাথে সাথে যেন পুলিশকে খবর জানাতে পারে।

IMG IMG IMG

More From Category