সারাদেশ

ঘোড়াশালে ৫ স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি

নরসিংদীর ঘোড়াশাল বাজারের ৫টি স্বর্ণের দোকানসহ ৬টি দোকানে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। সোমবার দিবাগত রাতে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ১০৯ ভরি স্বর্ণালংকার, ২-৩শ ভরি রৌপ্য ও নগদ ১৮ লাখ টাকা লুট হয়েছে বলে দাবি করেছেন ব্যবসায়িরা। ডাকাতের হামলায় আহত হয়েছেন ২ দোকান কর্মচারি।
ডাকাতির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন পলাশ থানার ওসি শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন। ডাকাতি হওয়া দোকানগুলো হলো- মুসলিম জুয়েলার্স, জনতা গহনা, প্রিয় জুয়েলার্স, মল্লিক জুয়েলার্স, মা শিল্পালয় ও ১টি চালের দোকানের সিন্ধুক এর স্বর্ণালংকার।
ডাকাতি হওয়া সিন্দুক
ডাকাতি হওয়া সিন্দুক

পুলিশ ও বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, রাত ১টার দিকে ২০-৩০ জনের একদল অস্ত্রধারী ডাকাত একসাথে বাজারের ৫টি স্বর্ণের দোকানে হানা দেয়। এসময় তারা ডিবি পরিচয়ে দোকানে থাকা লোকজন ও বাজারের পাহারাদারদের ধরে ও মারধোর করে একটি ঘরে আটক রাখে। পরে রাত ১টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত ৫টি দোকানের তালা ও সিন্ধুক গ্যাসজাত মেশিনে কেটে ১০৯ ভরি স্বর্ণ, ২-৩শ ভরি রৌপ্য ও নগদ ১৮ লাখ টাকা লুট করে। ডাকাতি শেষে বাজারের পাশের ঘাট থেকে শীতলক্ষ্যা নদী দিয়ে স্পীডবোট যোগে পালিয়ে যায়। পরে বাজার কমিটির লোকজন ও বাজারের ব্যবসায়ীরা পুলিশে খবর দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, জেলার সিআইডি, পিবিআই ও গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এঘটনায় আহত দোকানের দুই কর্মচারী বলরাম ও জয়রাম মন্ডপকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
পরিদর্শন শেষে নরসিংদীর পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বলেন, ডাকাতরা ৫টি দোকানে ঢুকে সিন্দুক ভেঙ্গে ৮০/৯০ ভরি স্বর্ণ, ২ থেকে ৩ শ ভরি রৌপ্য ও নগদ ১৫ লাখের মত টাকা লুট করেছে। তদন্তপূর্বক খতিয়ে দেখে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।