সারাদেশ

নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

মো: শফিকুল ইসলাম(মতি)
নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল রেলওয়ের জমির উপর থেকে প্রায় ৮২০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করেছে। বুধবার (১৫ জানুয়ারি) সকাল থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এ অভিযান পরিচালনা করেন।

বৃহস্পতিবার সকালে আবারও উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করবেন বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগীয় এস্টেট অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম। এ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগীয় ব্যবস্থাপনা অফিসার সালাউদ্দিন, কমান্ডেন্ট অফিসার জহিরুল ইসলাম, বিভাগীয় ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার আরিফ হোসেন, ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক জহির আলম। জানা যায়, এর আগে ২০১৬ এবং ২০১৭ সালেও একই স্থানে রেলওয়ের জমির উপর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছিল।

প্রভাবশালীরা রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মেনেজ করে আবারও রেলওয়ের জমিতে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলে বিভিন্ন লোকের নিকট ভাড়া দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষ থেকে আমরা এ উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনা করছি। এতে আমাদের অর্থ সময় দুটিই ব্যায় হচ্ছে। নরসিংদী জেলায় প্রভাবশালীরা রেলওয়ের জমিকে নিজের জমি মনে করে বাড়ী ঘর দোকান পাট র্নিমান করে নিজেরা ব্যবহার করছে আর অন্যের কাছে ভাড়াদিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। অবৈধ দখল দাররা এই সুযোগ আর পাবেনা যে কোনর বিনিময়েই হোকনা কেন তা রক্ষা করতে হবে।

রেলওয়ের জমি হইতে অবৈধ দখল দাররা নিজ উদ্ধেগে তাদের স্থাপনা সরিয়ে ফেলবে না হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অনেক সময় আমরা নোটিশ দিলে তারা সময় চায়। ঘোড়াশাল ফ্ল্যাগ রেলওয়ে স্টেশনের আশে পাশে প্রায় ৮২০ টির মতো অবৈধ দোকান ও কিছু বস্তি ও রয়েছে। সবগুলোই আমরা আজ এবং কাল দুইদিনে উচ্ছেদ করবো, পরে পর্যায় ক্রমে সব জেলায় অভিযান চলবে। ভবিষ্যতে যদি লাগে আরও করবো। এর পরে আমরা পুরোটাই মাস্টার প্ল্যান এর আওতায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা করবো।