সারাদেশ

প্রতিবাদ বিজ্ঞপ্তি

সোমবার আনন্দ টিভিতে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে নরসিংদীর বাগহাটায় অবৈধ মিল দখলের অভিযোগ সন্ত্রাসী রিন্টু বাহিনির বিরুদ্ধে। রিপোর্টে বলা হয়েছে আমি মিলটি দখল করেছি এবং আমাকে সন্ত্রাসী,বিএনপি জামাত নেতা ও তারেক জিয়ার দোসর উল্লেখ করা হয়েছে। যা সম্পুর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত।

উক্ত রিপোর্টে আরো উল্লেখ্য করা হয়েছে যে ,মিলটির মালিক হলো আমজাদ হোসেন ভূঞা।এটাও সত্য নয়। প্রকৃতপক্ষে মিলটির মালিক হলো আমার পিতা আলহাজ¦ আব্দুল মতিন মোল্লা। মিলটি আমাদের নিকট হইতে আতাউর রহমান নামে জনৈক ব্যাক্তি একটি চুক্তির মাধ্যমে ভাড়া নিয়েছিল। পরবর্তি সময়ে আতাউর রহমান আর আমাদের মিলের দখল ছাড়তে রাজি হচ্ছিলনা।একাধিক বার নোটিশ করা হয় কিন্ত তিনি কর্ণপাত করেননি।পরে মিল থেকে মালামাল সড়িয়ে নেয়া ও অবৈধ দখলের অভিযোগে সোনালী ব্যাংকের পক্ষ থেকে আতাউর রহমান ওরুফে সুইডেন আতাউর এর বিরুদ্ধে একটি মামলা করে। সেনালী ব্যাংকের মামলা গ্রেফতার হয়ে অতি সম্প্রতি সে জেল খাটেন।

এতে সে আমার উপর ক্ষিপ্ত হয় এবং আমার পিছু নেয় এবং আমার ক্ষতি করার অপচেষ্টা চালানো শুরু করেন। এছাড়াও সে আমাকে খুন ও গুম করার হুমকি প্রদান করেন। রিপোর্টটিতে আমাকে সন্ত্রাসী ও স্থানীয় বিএনপি জামাত নেতা হিসেবে উল্লেখ্য করা হয়েছে। কিন্ত আমার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কোন অভিযোগ নেই এবং আমি কোন রাজনৈতিক দলের সাথে যুক্ত নই। আমি নরসিংদী জেলার একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যাবসায়ী, নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সাবেক পরিচালক। এছাড়া বর্তমানে আমি বাংলাদেশ টেক্রটাইল মিল এসোসিয়েশন (বিটিএমএ)তে পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।প্রচালিত রিপোর্টটিতে আমার মান সম্মান ও সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে। আমি মিথ্যা ও বানোয়াট খবরের প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

রাশেদুল হাসান রিন্টু
চৌয়ালা,নরসিংদী।