- সারাদেশ

সীমাহীন দূর্নীতিতে নিমজ্জিত নরসিংদী মনোহরদী সাবরেজিষ্ট্রি অফিস

অনিয়মই এখানে নিয়ম। ঘুষ ছাড়া কোনো কাজ হয় না। দলিল রেজিষ্ট্রি থেকে শুরু করে সব জায়গায় দিতে হয় মাত্রাতিরিক্ত টাকা। নিয়ম না থাকলেও প্রতি রবি ও সোমবার সকাল ১০ টার পর থেকেই গ্রামের জমির দলিলের জন্য ৩% এবং শহরের জমির দলিল সম্পাদন করার জন্য কতিপয় (জমি ক্রয়কৃত ব্যক্তিবৃন্দ) দলিল গ্রহিতাদের কাছ থেকে ২% ঘুষের টাকা আদায় করা হচ্ছে। একটি সাব-কাবলা দলিল রেজিষ্ট্রি করতে প্রতি লাখে স্ট্যাম্প ৩%, রেজিষ্ট্রি ২%, ট্যাক্স ৩%, স্থানীয় সরকার ৩% হারে সরকারিভাবে আদায় করার কথা থাকলেও কার্যকর হচ্ছে না মনোহরদী সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে। সাব-কাবলা দলিলকে দানপত্র দলিল দেখিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা, আর সরকার হারাচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব।

এভাবে মনোহরদী সাব-রেজিষ্টি অফিসের অফিস সহকারী জয়নাল আবেদিন ও পিয়ন মাহবুব প্রতিমাসে অবৈধভাবে আয় করছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এছাড়াও মনোহরদী সাব-রেজিষ্টি অফিসে নকল নবিস হিসেবে ৩০-৩৫ জন প্রতিদিন কাজ করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। বর্তমান মানোহরদী সাব-রেজিষ্টার মনিরুজ্জামান গত ৫ মাস পূর্বে মনোহরদী সাব-রেজিষ্টি অফিসে যোগদান করেন। তিনি মনোহরদী সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস ও গাজীপুর সাবরেজিষ্টি অফিসে দ্বায়িত্ব পালন করে আসছেন। সাব রেজিষ্টারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘লোকবল কম থাকায় ২ জেলায় সাবরেজিষ্টার হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। যার ফলে প্রতিদিন অফিস করা সম্ভব হচ্ছে না।’ মনোহরদী সাব-রেজিষ্টি অফিসে সপ্তাহে ২ দিন অফিস করার কথা জানান তিনি।

দলিল লেখকরা জানায়, ‘সাব-রেজিষ্টার কোন মাসে ১ দিন আবার কোন সপ্তাহে ১ দিন ইচ্ছামাফিক অফিসে আসেন। আমাদের কথা আমলেই নিচ্ছেন না তিনি। যার ফলে দিনের পর দিন ক্রেতা গ্রহিতারা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। আবার প্রতি দলিল মাফিক অফিসিয়াল ২-৩% অতিরিক্ত টাকা না দিলে দলিল রেজিষ্ট্রি করছেন না তারা।’

ক্রেতা-গ্রহিতারা জানায়, ‘মনোহরদী সাব-রেজিষ্টি অফিস যেখানে টাকা ছাড়া কোন কাজ হয় না। সাব-কাবলা দলিলের ক্ষেত্রে প্রতি লাখে ১১% এর কথা স্বীকার করলেও দাতা গ্রহিতাদের নিকট থেকে ১৪-১৫% হাতিয়ে নিচ্ছে। দাতা গ্রহিতাদের টাকা বাচানোর কথা বলে সাব কাউলা দলিলকে দানপত্র দলিল হিসেবে চালিয়ে দিচ্ছে দলিল লিখক ও কর্মকর্তারা। এছাড়া দলিলের শ্রেণী পরিবর্তন ভিটিকে নাল, নালকে ঢোবা, ঢোবাকে জলাশয়ে পরিবর্তন করে দাতা গ্রহিতাদের নিকট থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।’

সাব-রেজিষ্টারের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হন নি। সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস সহকারী জয়নালের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাব-কাবলা দলিল রেজিষ্ট্রি করলে প্রতি লাখে ১১% ও দানপত্র দলিল করলে প্রতি লাখে ৮% হারে টাকা দিতে হবে।

দলিল লিখক সমিতির সভাপতি আবুল কালামের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সাব-কাবলা দলিলের ক্ষেত্রে ১৩% ও দানপত্র দলিলের ক্ষেত্রে ১১% হারে টাকা দিতে হবে।’ এছাড়া সাবকাবলা দলিলের চেয়ে দানপত্র দলিল অনেক ভালো বলে জানান তিনি। এভাবেই দলিল লিখক, অফিস সহকারী ও সাব-রেজিষ্টার যৌথভাবে দলিল গ্রহিতাগনের নিকট থেকে প্রতিদিন হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এসব বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া প্রয়োজন।

এখানে কমেন্ট করুন: