- ফিচার

নরসিংদীতে প্রেমের টানে পালিয়ে বিয়ে, শ্বশুর-শাশুড়ির কেরোসিনের আগুনে মৃত্যু!

মো. হৃদয় খান: শ্বশুর ও শাশুড়ির মাদক ব্যবসায় সহযোগিতা না করায় শরীরে কেরোসিন ঢেলে লাগিয়ে দেওয়া আগুনে দগ্ধ গৃহবধূ জান্নাতি আক্তার (১৮) ৪০ দিন হাসপাতালে ভোগার পর মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে তার মৃত্যু হয়। এর আগে গত ২১ এপ্রিল (রবিবার) ভোরে নরসিংদীর হাজিপুরে শ্বশুর বাড়িতে থাকা অবস্থায় তার তার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেওয়া হয়।

নিহত জান্নাতি নরসিংদী সদর উপজেলার হাজিপুর গ্রামের শরীফুল ইসলাম খানের মেয়ে ও পার্শ্ববর্তী চরহাজীপুর গ্রামের হুমায়ুন মিয়ার ছেলে শিপলু মিয়ার স্ত্রী।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, হাজিপুর গ্রামের শরীফুল ইসলাম খানের মেয়ে জান্নাত পাশের গ্রাম চরহাজি পুরের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী হুমায়ুন (৫০) ও মাদক সম্রাজ্ঞী শান্তি বেগম (৪৫) এর ছেলে শিপলু ওরফে শিভু (২৩) ভালবেসে গত বছর ঈদূল আযহার দিন পালিয়ে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই মাদক সম্রাজ্ঞী ও মহিলা কিলার নামে খ্যাত শান্তি বেগম জান্নাতকে কখনো পুত্র বধু হিসেবে মেনে নিতে পারেনি। জান্নতকে প্রায় সময়ই মাদকব্যবসা করতে চাপ সৃষ্টি করতো। এতে জান্নাত বেগম রাজি না হওয়ায় তাকে প্রতিনিয়ত শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করা হতো। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে জান্নাত বেশ কয়েকবার বাবার বাড়িতে চলে গিয়েছিল। তার শ্বশুর শাশুরী আর কখনো নির্যাতন করবে না অঙ্গীকার করে পুত্র বুধ জান্নাতকে বাড়ীতে নিয়ে আসে।

পরবর্তীতে আবারও তার উপর নির্যাতন শুরু হলে জান্নাত রাগে ও ক্ষোভে ঢাকায় তার বাবা-মার নিকট চলে যায়। পরে স্বামী শিবুর অনুরোধে শিবুুর সাথে ঢাকা থেকে জান্নাত শ্বশুর বাড়ি চলে আসে।

জান্নাত সন্ধ্যায় শ্বশুর বাড়ি আসলে সারারাত শ্বশুর-শাশুড়ি ও তার ননদ ফাল্গুনী বেগম এর সাথে ঝগড়া করে। ঝগড়ার এক পর্যায়ে তার শ্বাশুড়ি শান্তি বেগম জান্নাতকে বলে, এ বাড়িতে থাকতে হলে তোকে মাদকব্যবসা করতে হবে। জান্নাত এতে রাজি না হওয়ায় ঘটনার দিন ভোরে ঘুমন্ত অবস্থায় তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেইয়া হয়। পরে তাকে প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে এবং পরে মুমূর্ষ অবস্থায় ঢাকা কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দুজ্জামান বলেন, পরিবারের পক্ষে অগ্নিদগ্ধের ঘটনায় আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই তদন্ত করছে। এই মামলায় কোন গ্রেফতারের তথ্য আমার জানা নেই। সেটাই হত্যা মামলায় রুপান্তরিত হবে বলে তিনি জানান।

এখানে কমেন্ট করুন: